ব্লগ

ব্লগ কি ? ব্লগিং ও ব্লগার এর সংজ্ঞা। ব্লগিং কেন এত জনপ্রিয়?

আপনি কি ব্লগ বা ওয়েবসাইট শুরু করার বিষয়ে ভাবছেন? তাহলে এই বিষয়গুলো হয়তো আপনার ব্লগিং শুরু করার ক্ষেত্রে সহায়তা করবে।

ব্লগ ও ব্লগিং কে কেন্দ্র করে সাধারণত আমাদের মনে যে প্রশ্নগুলো আসে সেগুলো নিয়ে আজ আমাদের আলোচনা।

ব্লগ এর মানে ?

ব্লগ হলো একটি অনলাইন ডায়েরি বা তথ্য ভিত্তিক ওয়েবসাইট যেখানে তথ্য প্রদর্শন করা হয়। এতে সবর্শেষ লেখা পোস্টটি প্রথমে দেখানো হয়। এটি এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে এক বা একাধিক লেখক তাদের মতামত ও ধারনাগুলো লিখে থাকে।

Blog হলো একটি নিয়মিত আপডেট হওয়া ওয়েবসাইট বা ওয়েব পেইজ। এটি এখন ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য বা ব্যবসায়ের প্রয়োজনীয়তা পূরণের জন্য ব্যবহার করা হয়।

বর্তমানে ৫৭০ মিলিয়ন এর বেশি Blog ওয়েবে আছে। Statista তাদের একটি লেখায় প্রকাশ করেছে, শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে Blogger এর সংখ্যা ২০২০ সালে ৩১.৭ মিলিয়ন এ পৌঁছে যাবে। আর ২০২১ সালে তা ৩২ মিলিয়ন এ গিয়ে পৌঁছাবে।

কেন এত জনপ্রিয় 2

Blogging ও Blogger এর সংজ্ঞা

Blogging : একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইটে কোন একটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করে পাঠকদের কাছে প্রকাশ করাকে Blogging বলা হয়।
একটি ব্লগ পরিচালনা করার জন্য অনেকগুলো জিনিসের প্রয়োজন হয়। আর্টিকেল লেখা, তারপর সেটা প্রকাশ করা এবং প্রচার করা। ব্লগের কনটেন্ট সহজে খুঁজে পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় টুল ইনস্টল করে ব্যবহার এবং শেয়ার করা। এ সমস্ত কাজগুলোকে Blogging বলা হয়।

Blogger : Blogger হলো তারাই যারা ব্লগিং করে বা যারা ইন্টারনেটে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে লেখালেখি করে।

শখের বখে কিংবা প্রফেশনালি যেভাবেই Blogging করুন না কেন সেটা বিবেচ্য বিষয় নয়। আপনি যদি ব্লগে প্রায় সময় লেখা লেখি করেন তাহলে আপনাকে Blogger বলা যেতে পারে।

Blog বানানোর অনেকগুলো কারণ থাকতে পারে। কেউ শখের বশে বা নিজেকে সবার কাছে তুলে ধরার জন্য। কেউ ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে আবার কেউ অনলাইনে ইনকামের জন্য Blog করে থাকে।

বাংলা ভাষায় ব্লগ

বাংলা ভাষায় প্রথম ব্লগ হলো Somewhereinblog.net । সৈয়দা গুলসান ফেরদৌস জানা ও তার স্বামী আরিল্ড ক্লোক্কেরহৌগ হলো এই Blog এর প্রতিষ্ঠাতা।

Somewhereinblog এর সূচনা ২০০৫ সালের শুরুতে। এই Blog সাইটটির স্লোগান হলো “বাঁধ ভাঙার আওয়াজ”। এর পর থেকে বাংলা ভাষায় Blog লেখা শুরু হয়।

ব্লগ এর সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

Justin Hall এর হাত ধরে ১৯৯৪ সালে ব্লগের সূচনা হয়। Links.net – এ সাইটে তিনি তার ব্লগটি প্রকাশ করেন। সেই সময়ে এটিকে Blog হিসেবে বিবেচনা করা হয়নি, কেবল একটি ব্যক্তিগত হোমপেইজ হিসেবে দেখা হয়েছে।

এ সমস্ত সাইটগুলো সম্পর্কে বর্ণনা করতে, ১৯৯৭ সালে জর্ন বার্গার “ওয়েবলগ” শব্দটি সৃষ্টি করেছিলেন। ‘লগিং দ্যা ওয়েব’ (loging the web) টার্মটির মাধ্যমে তিনি ওয়েব সার্ফিং যা বর্তমানে ব্রাউজিং নামে পরিচিত সেটিকে বুঝিয়েছেন।

পরবর্তিতে, প্রোগ্রামার পিটার মেরহলজ ১৯৯৯ সালে “Weblog” শব্দটি সংক্ষিপ্ত করে “Blog” নাম দিয়েছিলেন।

প্রাথমিক পর্যায়ে, Blog ছিলো একটি ওয়েব লগ বা জার্নাল যাতে কোন ব্যক্তি বিভিন্ন বিয়ে তথ্য বা তাদের মতামত ভাগ করে নিতে পারে।

১৯৯৯ সালে জনপ্রিয় Blogging ওয়েবসাইট Blogger.com চালু হয়েছিল। যা পরে গুগল ২০০৩ সালে ফেব্রুয়ারিতে সেটি কিনে নেয়।

একই বছর, ওয়ার্ডপ্রেস ২০০৩ সালের মে মাসে Blogging প্ল্যাটফর্ম হিসাবে তার প্রথম সংস্করণ প্রকাশ করে।

আজ ওয়ার্ডপ্রেস হল বিশ্বের সর্বাধিক জনপ্রিয় Blogging প্ল্যাটফর্ম। ইন্টারনেটে থাকা সাইটগুলোর মধ্যে ৩৫% এর বেশি ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে তৈরি।

Blogging কেন এত জনপ্রিয়

Blogging কেন এত জনপ্রিয় তার পিছনে বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। Blogging বিশ্বের প্রায় সব দেশেই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বর্তমানে এটি অনেক লোকের আয়ের অন্যতম একটি মাধ্যম।

বর্তমানে ইন্টারনেট সহজলভ্য হওয়ার কারনে সবাই তথ্যে জানার জন্য Blog পড়ে থাকে। এই ডিজিটাল যুগে Blog হলো তথ্য খোঁজা বা জানার প্রধান মাধ্যম।

Blogging এর মাধ্যমে যে কেউ তার দক্ষতা এবং প্রতিভা প্রদর্শন করতে পারে। শখের বশে লেখালেখি করার জন্য অনেকে ব্লগের সাথে যুক্ত রয়েছেন।

আবার অনেকে Blogging কে গুরুতরভাবে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। যেমন – ডিজিটাল মার্কেটিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং, ই কমার্স, ড্রপশিপিং ইত্যাদি।

ব্লগিং

Blog হলো অনলাইন ইনকামের একটি অন্যতম মাধ্যম। আপনার Blog এ যদি যথেষ্ট পরিমান ভিজিটর থাকে, তাহলে সেখানে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে আয় করতে পারবেন। তার পাশাপাশি এফিলিয়েট প্রোডাক্ট ও প্রমোট করা যায়।

একটি ব্যবসাকে জনপ্রিয় করে তুলতে এবং অন্যের কাছে বা ব্যবসায়ের বাজারে প্রচার করার জন্য Blog হলো সেরা জায়গা।

বেশিরভাগ পণ্য সংস্থাগুলি এবং বিপণন বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন, Blogging হলো তাদের পণ্য বা পরিষেবাদি প্রচারের একটি কার্যকর উপায়। Blogging জনপ্রিয় হওয়ার ক্ষেত্রে এটি অন্যতম একটি কারণ।

Blogging আপনার অনলাইন ব্যবসা বা স্টোরকে প্রসারিত করতে সহায়তা করে। আপনি যদি সঠিক কৌশল অনুসরণ করেন তবে আপনি সহজেই আপনার অনলাইন স্টোর বা ব্যবসায় আরও বেশি গ্রাহক পাবেন। আপনার পণ্যগুলিকে ও সহজে প্রচার করতে পারেন।

প্রত্যেকেই যে কোনও ক্ষেত্রে জনপ্রিয় বা পরিচিত মুখ হতে পছন্দ করে। Blogging হলো নিজের স্কিল বা কোন কিছু ব্রান্ডিং করার জন্য একটি জনপ্রিয় মাধ্যম।

আপনি যদি নিজের ব্লগটি কেবলমাত্র ব্যক্তিগত বিষয়ে ব্যবহার করতে চান তবে Blogspot বা WordPress.com দিয়ে বিনামূল্যে Blog তৈরি করতে পারেন।

তবে আপনি যদি ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে বা ব্লগের মাধ্যমে ইনকাম করতে চান সেক্ষেত্রে আপনার ডোমেইন ও হোস্টিং কিনে Blog বানাতে হবে।

Blogging কেবল অর্থ উপার্জনের বা বিশ্বে জনপ্রিয় হওয়ার মাধ্যম নয়। এটি আপনার লেখার দক্ষতা, জ্ঞান, অভিজ্ঞতা এবং প্রতিভার মাধ্যমে অন্যের কাছে অনুপ্রেরণা হয়ে ওঠার এক দুর্দান্ত উপায়।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

16 + 11 =