ওয়ার্ডপ্রেস কি? কি কি করতে পারবেন ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে!

ব্লগিং জগতে ওয়ার্ডপ্রেস একটি অতি পরিচিত নাম। যারা ব্লগিং এ একেবারে নতুন বা শিখতে শুরু করেছেন তাদের ওয়ার্ডপ্রেস নিয়ে মনে অনেক প্রশ্ন আসতে পারে! যেমন: ওয়ার্ডপ্রেস কি এবং কি কি উপায়ে আমরা এটিকে ব্যবহার করতে পারি। চলুন জেনে আসি ওয়ার্ডপ্রেস ও এর ব্যবহার সম্পর্কে :

ওয়ার্ডপ্রেস হলো একটি কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ( CMS)। যা আপনাকে ওয়েবসাইট তৈরি করতে সাহায্য করে। এটি আপনার লেখাগুলো পাবলিশ করতে সহায়তা করে যা আপনি বিশ্বের সবার সাথে শেয়ার করতে চান।

ওয়ার্ডপ্রেসকে সংক্ষেপে WP বলা হয়ে থাকে। এর মূল ভাষা হলো PHP। ওয়ার্ডপ্রেস এর ব্যবহার সহজ হওয়ায় এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। আপনি কোডিং না জানলে ও ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে আপনার ব্লগ সাইটকে সুন্দরভাবে সাজাতে পারবেন।

Wordcamp এর মতে, ৭৫০ লাখ এর ও বেশি সাইট ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করছে। ইন্টারনেটে থাকা কোটি কোটি ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে ৩৫ % এর বেশি ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা তৈরি।

চলুন ওয়ার্ডপ্রেস এর তিনটি মূল বিষয় নিয়ে কথা বলি –

১। কনটেন্ট ক্রিয়েট :

ওয়ার্ডপ্রেস এ একটি উন্নতমানের টেক্সট এডিটর রয়েছে। যাকে ব্লক এডিটর বলা হয়। এটি পোস্ট এবং পেইজ তৈরি করতে সাহায্য করে। এটা আপনার পোস্ট ও পেইজগুলিতে সমস্ত ধরণের মিডিয়া (ছবি,অডিও,ভিডিও) যুক্ত করার সুবিধা দিয়ে থাকে।

২। কনটেন্ট অরগানাইজ :

আপনি আপনার কনটেন্টগুলোকে নিজের মত করে সাজতে পারবেন। যেমন : আপনি মেন্যু এড করতে পারবেন। আপনার পোস্ট এর ক্যাটাগরি ও ট্যাগগুলো নিজের মত করে বানাতে পারবেন। এভাবেই কনটেন্টগুলো দিয়ে একটি ব্লগ সাইট তৈরি হয়।

৩। সাইট কাস্টমাইজ :

আপনার সাইটটি কিভাবে কাজ করবে এবং এটি দেখতে কেমন হবে, সেগুলো কাস্টমাইজ করার সব অপশন এখানে রয়েছে। যেমন, বিভিন্ন ধরণের থিম রয়েছে। তাদের ফ্রি রিসোর্স থেকে আপনার পছন্দ মত একটা থিম বেছে নিতে পারবেন। এমনকি কাস্টম কোড ও এড করতে পারবেন। এভাবে আপনি আপনার ওয়েবসাইটকে ইউনিক করে তুলতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস এ রয়েছে একটি বিশাল রিসোর্স বা স্টোর। সেখান থেকে আপনি আপনার পছন্দমত থিমস ও প্লাগিন্স নিতে পারবেন। এই সব থিমস ও প্লাগিন্স দিয়ে আপনি আপনার সাইটকে পরিপূর্ণ রূপ দিতে পারবেন। কিছু কিছু থিমস ও প্লাগিন্স এ ফ্রি ও পেইড উভয় ভার্সন করেছে। তবে পেইড ভার্সন এ অনেক সুবিধা পাওয়া যায় যা ফ্রি ভার্সন এ লিমিটেড থাকে। যেমন – Yoast Seo ফ্রি প্লাগিন্স দিয়ে আপনি একটির বেশি কি ওয়ার্ড এড করতে পারবেন না।

ওয়ার্ডপ্রেস হলো ফ্রি এবং ওপেন সোর্স কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। এটি ব্যবহার করার জন্য আপনাকে কোনো লাইসেন্স ফি দিতে হবে না। তবে এটা শুধু WordPress.org এর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

WordPress এর অন্য একটি প্ল্যাটফর্ম রয়েছে WordPress.com। তবে সেখানে কিছু পেইড প্ল্যানস রয়েছে।

ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে কি কি করতে পারবেন :

আপনি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে প্রায় সবকিছু করতে পারবেন। যা আমরা পূর্বে ও উল্লেখ করেছিলাম। উদাহরণস্বরূপ, আপনি তৈরি করতে পারেন – একটি নিজস্ব ব্লগ, এডুকেশন ওয়েবসাইট, নিউজ পোর্টাল, এফিলিয়েট সাইট, ফটোগ্রাফি সাইট, অনলাইন স্টোর, আলোচনার ফোরাম, ডাইরেক্টরি ম্যাপ ওয়েবসাইট ও অনেক কিছু।

ওয়ার্ডপ্রেস আপনাকে ব্লগিং এবং ওয়েবসাইট তৈরির চেয়ে অনেক বেশি সহায়তা করতে পারে। যেমন : আপনি প্রজেক্ট পরিচালনা বা অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণের জন্য একটি উপকরণ হিসাবে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

নিজের চিন্তা-চেতনা এবং ধারণাগুলি ভাগ করে নেওয়ার জন্য অনুরূপ আগ্রহের লোকদের জন্য একটি কমিউনিটি তৈরি করতে আপনি এটি ব্যবহার করতে পারেন।

এটি আফ্রিকার দুর্ভিক্ষের মতো বাস্তব-বিশ্ব ইস্যুতে সচেতনতা ছড়িয়ে দিতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

আপনি ক্লায়েন্টদের কাছে আপনার পেশাদার দক্ষতা প্রদর্শন করতে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

আপনি পণ্য এবং পরিষেবা বিক্রয় করে অর্থোপার্জন করতে পারেন।

মনে রাখবেন, WordPress দিয়ে ওয়েবসাইট বানানোর জন্য আপনার একটি ডোমেইন নেম ও একটি ওয়েব হোস্টিং একাউন্ট বা সার্ভার থাকতে হবে। তারপর আপনি সেখানে WordPress CMS install করে যেকোনো ধরণের ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন।

Leave a Comment

15 + 4 =